২রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

EN

পবিত্র মাহে রমজান

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ৯:৫১ অপরাহ্ণ , ২৮ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে

রাত ৩টা বাজে ওঠো! আস্তে, ধীরে, যেন কেউ জানতে না পারে।
সবচেয়ে সুন্দর ও পবিত্র জামা নিয়ে হাম্মামখানায় বা গোসলখানায় অথবা ওয়াশরুমে যাও।
মিসওয়াক করে উত্তমরুপে গোসল করে সবচেয়ে সুন্দর জামাটি পড়ো; কাউকে দেখানোর জন্য না! একমাত্র আল্লাহর জন্য।
চোখে সুরমা লাগাও, মাথার চুল আঁচড়াও; হালাল সুগন্ধি লাগাও।
নিজেকে উত্তমরুপে সাজাও, আজকের এই গোসল, এই সাজ আল্লাহর জন্য। শুধুই মহান সৃষ্টিকর্তার জন্য।
জায়নামাজ বিছিয়ে ধীরস্থির ভাবে দুই রাকাত নামাজ পড়ো।
নামাজান্তে সেজদায় লুটিয়ে চোখের পানি ছেড়ে মহান সেই রবকে ডাকো, যিনি তোমার প্রার্থনা শোনার জন্য, তোমার চোখের পানি দেখার জন্য প্রথম আসমানে নেমে এসেছেন।
ধৈর্য্যধারণ করে,প্রশান্তচিত্তে,নামাজের মধ্যে তাঁকে ডাকতে থাকো।
সেই রব তোমার দোয়া কবুল করবেন না তো আর কার দোয়া কবুল করবেন!
তোমার ডাক শুনবেন না তো আর কার ডাক শুনবেন!
তুমি আর সেই ব্যক্তি কি এক হয়ে গেলে যিনি বেঘোরে ঘুমাচ্ছে আর তুমি অশ্রুবর্ষণ করে মহান রবের কুদরতি পা সিক্ত করছো!
না না তুমি আল্লাহর রহমতের ছাঁয়ার নিচে আর সে অনেক অনেক দূরে।
তোমার প্রার্থনায় আরশ কেঁপে ওঠছে, তকদির দোলছে, অবশেষে আল্লাহ তকদির পরিবর্তন করে বান্দার আরজি কবুল করেন।
.
তোমার দোয়া কবুল হয় না, তোমার দুঃখ মোচন হয় না, তোমার বিপদ আরো বেড়েই চলছে…।
ওই নিয়মে ডাকতে থাকো, আরে…যিনি মাত্র ৬ দিনে এই পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন যদি ডাকার মতো তাঁকে ডাকো তবে তোমার ইচ্ছে কবুল হতে ৬ মিনিটও লাগবে না।
পৃথিবীতে এমন কেউ কি আছে যে আল্লাহর কাছে কিছু চেয়েছে কিন্তু আল্লাহ তা দেয়নি? প্রমাণ করতে পারবে?
হুমম…হুবহু সেই জিনিসটি হয়তো দেননি তবে তার থেকে অনেক অনেক গুণ উত্তম কিছু দিয়েছেন। পরবর্তীতে প্রার্থনাকারী অবশ্যই তা টের পেয়ে লজ্জিত হয়ে বলেছেন- হায়! আমি কত বোকা, না বুঝে কত ছোট প্রার্থনাই না করেছিলাম।
..
কখনো কি আল্লাহর জন্য নিজেকে সাজিয়েছো?
ঐ ভাবে মহান রবকে ডেকেছো?
সকলের প্রতি অনুরোধ রইল রমজান এ আমরা যদি এই ভাবে আল্লাহকে ডাকতে পারি তবে করোনার মতো মহামারী থেকে জগতবাসী মুক্তি পেতে পারে।
লেখক- লিটু সুলতান

আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

আরও পড়ুন