১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

EN

নবীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের সীটে কুকুর চিকিৎসককে তলব।।

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ৬:৩০ অপরাহ্ণ , ৩০ মে ২০২১, রবিবার , পোষ্ট করা হয়েছে 3 years আগে

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি।।ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে সরকারি হাসপাতালে কুকুর ঢুকে পড়ায় দুইজন চিকিৎসককে তলব করেছে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

এ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান ২৭ মে ওই দুই চিকিৎসককে কৈফিয়তের জন্য ৪৮ ঘণ্টার সময় দিয়ে তলব করেন।

ঘটনার সময় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দারোয়ান হারিছ মিয়া ছিলেন না। তখন জরুরি বিভাগে দায়িত্ব পালন করছিলেন মেডিকেল অফিসার ডা. ইখতিয়ার উদ্দিন।

এটি আমাদের অফিসের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে সাংবাদিকদের ধাপাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

প্রশ্ন উঠেছে দারোয়ানের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে নোটিশ প্রদান করা নিয়ে।

তলবকৃত চিকিৎসকরা হলেন, আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. মোশরাত ফারখান্দা ও মেডিকেল অফিসার ডা. ইখতিয়ার উদ্দিন।

জানা যায়, গত ২৬ মে সকালে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে কিছু সংখ্যক কুকুর ঢুকে পড়ে। এসময় হাসপাতালের দায়িত্বপ্রাপ্ত দারোয়ান হারিজ মিয়া ছিল না। জরুরী বিভাগে দায়িত্ব পালন করছিলেন মেডিকেল অফিসার ডা. ইখতিয়ার উদ্দিন। কুকুর হাসপাতালের করিডোরে থাকা একটি সিটে দুইটি কুকুর বসে থাকার একটি ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

এনিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান গত ২৭ মে বৃহস্পতিবার দুইজন চিকিৎসকে ৪৮ ঘন্টার সময় দিয়ে তাদের কৈফিয়ত তলব দাখিল করতে নোটিশ প্রদান করেন। দারোয়ানের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে চিকিৎসকদের নোটিশ প্রদানের পর হাসপাতালের অন্যান্য চিকিৎসকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করে। বিষয়টি গোপন রাখেন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান।

এই বিষয়ে শনিবার রাতে অভিযুক্ত চিকিৎসক ইখতিয়ার উদ্দিন বলেন, ওইদিন মেডিকেল অফিসার হিসেবে জরুরী বিভাগে দায়িত্বপ্রাপ্ত আমি ছিলাম। জানতে পারি একটি কুকুর হাসপাতালের ঢুকে পড়ে। ওই দিন কুকুরটি হাসপাতালের একটি সিটে উঠে পড়ে। তিনি বলেন, আমি তো জরুরী বিভাগের দায়িত্বে ছিলাম। আমার কাজ চিকিৎসা দেওয়া, হাসপাতালের কুকুর তাড়ানো না ? ২৯ মে ছিল নোটিশের জবাব দেওয়ার শেষ দিন, আমি ইতিমধ্যে তলবের জবাব প্রদান করেছি।

তলব করার বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, আমরা উর্ধ্বতন কর্মকতাদের সাথে কথা বলে পরবর্তী করণীয় নির্ধারন করবো।

হাসপাতালে কুকুর ঢুকার কারণে দারোয়ানের বিষয়ে কোন ব্যবস্থা না নিয়ে চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হলো? ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সিভিল সার্জন ডা. একরাম উল্লাহ’কে প্রশ্ন করা হলে তিনি উল্টো প্রশ্ন করে বলেন, এই বিষয়টি কি আপনাদের জানার বিষয় ?

তিনি আরও বলেন, এটি আমাদের অফিসিয়াল অভ্যন্তরীণ বিষয়। আমি জেনে আপনাদের পরে জানাব।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

May 2021
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  
আরও পড়ুন