১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

EN

অনির্দিষ্টকালের জন্য আখাউড়া স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ৪:১৫ অপরাহ্ণ , ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শুক্রবার , পোষ্ট করা হয়েছে 5 years আগে

আখাউড়া প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলায় অনির্দিষ্টকালের জন্য সকল প্রকার পণ্য আমদানি-রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা করেছে স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশন। আগামী শনিবার সকাল হতে এই ঘোষণা কার্যকর হবে।

বৃহস্পতিবার আখাউড়া স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই ঘোষণার কথা জানানো হয়।

আখাউড়া স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীরা জানান, আগরতলায় বিজেপি ও কংগ্রেসপন্থী ব্যবসায়ীদের মাঝে দ্বন্দ্ব চলছিল আগে থেকেই। পাশাপাশি আগরতলা আমদানি-রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক খোকন ভৌমিকের সাথেও তার পার্টনারদের আর্থিক লেনদেন নিয়ে ঝামেলা চলছে। এরই মধ্যে খোকন ভৌমিক ব্যবসায়িক কাজে বাংলাদেশে চলে আসেন। এতে করে তার পার্টনাররা ক্ষিপ্ত হয়ে বুধবার সকালে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তালা লাগিয়ে দেন। পাশাপাশি বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা মাছ, পাথর ও তুলাসহ বিভিন্ন পণ্য বন্দরের প্রধান ফটকে আটকে দেন। এতে করে বুধবার সকাল সাড়ে সাতটায় প্রবেশ করা প্রায় ২২ লাখ ৫ হাজার ৯’শ টাকার মাছ অনুরোধ করে সন্ধ্যার সাতটার দিকে ছাড়িয়ে নেন আগরতলার ব্যবসায়ীরা। তবে সবগুলো মাছ পচে নষ্ট হয়ে গেছে।

এছাড়াও আগরতলায় ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের জানিয়ে দিয়েছেন তাদের সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য সব ধরনের পণ্য নেয়া বন্ধ থাকবে। এতে করে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। তাই তারাও অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট পালন করবেন বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

আখাউড়া স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম জানান, ত্রিপুরার আগরতলা স্থলবন্দরে বিবাদমান দুইটি রাজনৈতিক গ্রুপের দ্বন্দ্বের কারণে আমাদের এখান থেকে যাওয়া কোন পণ্য আগরতলা বন্দরের বাইরে যেতে পারছে না। ফলে বুধবার বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ১০ হাজার ৪৯০ কেজি মাছ বন্দরে পচে নষ্ট হয়েছে। এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা সম্মিলিত সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য সকল প্রকার আমদানি-রপ্তানি বন্ধ রাখব।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

September 2018
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
আরও পড়ুন