১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

EN

লেবাননে ভিসা দালালদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে বাংলাদেশ সরকার

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ৬:৩২ অপরাহ্ণ , ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, সোমবার , পোষ্ট করা হয়েছে 6 years আগে

জহির রায়হান, লেবানন থেকে : মধ্যপ্রাচ্যের ছোট্ট একটি দেশ লেবানন। দেশটিতে প্রায় দেড় লাখ বাংলাদেশি অভিবাসী রয়েছে। যারা কোম্পানির কাজ থেকে শুরু করে ছোট-খাটো অনেক ধরনের ব্যবসার সাথে জড়িত। ভাল কর্মসংস্থান আর সেইসাথে মোটা অঙ্কের ভাল বেতনের প্ররোচনায় উদ্বুদ্ধ করে ফ্রি ভিসা নামক ভিসা দিয়ে দালালরা বিগত কয়েক বছরে প্রচুর বাংলাদেশি প্রবাসী এনেছে দেশটিতে। কিন্তু দালালদের কথামত সুনির্দিষ্ট কোম্পানির সাথে এই সকল প্রবাসী শ্রমিকদের চুক্তি থাকলেও এখানে এসে নির্দিষ্ট কাজ না পাওয়ায় অনেকেই অবৈধ হয়ে গেছেন।

কারণ বাংলাদেশ থেকে যেসব অভিবাসী ফ্রি ভিসায় লেবাননে এসেছিলেন তাদের অনেকেই আকামা (ওয়ার্ক পারমিট) থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। কেননা লেবাননের জেনারেল সিকিউরিটি যেকোন অভিবাসীকে আকামা (ওয়ার্ক পারমিট) দেওয়ার পূর্বে তার কর্মস্থল এবং কোম্পানির সবকিছু যাচাই বাছাই করেই আকামা (ওয়ার্ক পারমিট) প্রদান করেন।

কিন্তু ফ্রি ভিসায় আসা বাংলাদেশী অভিবাসীদের কোম্পানির মালিকের কোন কাজকর্ম না থাকায় কিংবা অন্যত্র কাজ করায় দেশটির জেনারেল সিকিউরিটি তাদের আকামা আটকে দিয়েছে। ফলে বহু বাংলাদেশী তাদের কাঙ্খিত আকামা (ওয়ার্ক পারমিট) না পেয়ে অবৈধ হয়ে আছেন। আর এ কারণে বাংলাদেশি প্রবাসীদের উপর এক ধরনের নেতিবাচক মনোভাব তৈরি হয়েছে লেবানন সরকারের।

তবে বর্তমানে পরিস্থিতি পাল্টেছে। কারণ এখন আর কোনো বাংলাদেশি প্রবাসী ফ্রি ভিসা কিংবা দালালদের মাধ্যমে লেবাননে প্রবেশ করতে পারবে না। দালালদের উৎপাতে সৃষ্ট বিভিন্ন সমস্যার কারণে বাংলাদেশ সরকার গত ২৬ আগস্ট লেবাননে কর্মী পাঠানো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়। পরে ২৮ আগস্ট অভিবাসন আইন মেনে নতুন পদ্ধতিতে লেবাননে শ্রমিক পাঠানোর প্রক্রিয়া ফের শুরু করে।

ভূমধ্যসাগরের কূল ঘেঁষে লেবানন। বৈরুতের রামেল বাইদা থেকে ছবি তুলেছেন জহির রায়হান।

এখন থেকে অভিবাসন আইন মেনে লেবাননে কর্মী পাঠানোর বিষয়ে গুরুত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। লেবাননে কর্মী পাঠানোর বিষয়ে নতুন পদ্ধতিও চালু হয়েছে।

নতুন এই পদ্ধতির বিষয়ে লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের মান্যবর রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার বলেন, বাংলাদেশী যে ভিসা দালাল আছে, তাদের কর্মকাণ্ডের কারণে আমাদের প্রবাসী শ্রমিকরা ঠিকমতো কাজ পাচ্ছে না, তাদের অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এসব দালালদের আমরা অনুরোধ করেছিলাম বাংলাদেশে থেকে লোক আনলে তারা যেন সঠিক তথ্য দিয়ে লোক আনে, যে কাজের কথা বলে আনা হয় সে কাজ যেন দেওয়া হয়।

কিন্তু তারপরও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় মাঝখানে তিন দিন লেবাননে কর্মী পাঠানো বন্ধ রাখার পর বাংলাদেশ সরকার লেবাননে কর্মী পাঠানোর ব্যাপারে নতুন একটি পদ্ধতি চালু করেছে।

নতুন পদ্ধতিতে যে সব রিক্রুটিং এজেন্সি কর্মী আনবে, তাদের প্রথমে দূতাবাসে আবেদন করতে হবে। দূতাবাস যাচাই-বাছাই করে যদি দেখে ওই কোম্পানির কর্মী আনার সামর্থ্য রয়েছে, তবেই তাদের অনুমতি দেওয়া হবে। দূতাবাসের অনুমতি ছাড়া কোন কর্মী লেবাননে আসতে পারবেনা।

মান্যবর রাষ্ট্রদূতের চেষ্টা এবং বাংলাদেশ সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়ে প্রবাসী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দরা বলেন, লেবাননে দালালদের প্ররোচনায় বর্তমানে ফ্রি ভিসায় কোনো বাংলাদেশী প্রবেশ করতে পারবেনা জেনে আমরা খুবই আনন্দিত। কারণ লেবাননে যতগুলো বাংলাদেশী প্রবাসী অবৈধ হয়ে আছে এদের হিংস ভাগই ফ্রি ভিসার বলি। দালালদের এই অবৈধ ফ্রি ভিসার বানিজ্য ও জালিয়াতি প্রক্রিয়া বন্ধ করতে লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের বর্তমান মান্যবর রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকারের চেষ্টাকে তাঁরা প্রশংসা করেছেন।

তাঁরা আরো বলেন, লেবাননে যে সব দালাল বাংলাদেশ থেকে ফ্রি ভিসা কিংবা প্রতারণার মাধ্যমে  শ্রমিক নিয়ে আসতো তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছেন মান্যবর রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার। এ কাযক্রম চালু থাকলে ভবিষ্যৎতে বাংলাদেশিরা দেশটিতে আরও এগিয়ে যাবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

September 2018
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
আরও পড়ুন