৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং | ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

EN

আশুগঞ্জের শরিয়তনগর সড়কের নির্মান কাজে অনিয়মের প্রমাণ পেলে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার হুশিয়ারী ইউএনও’র

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ১:৪৭ পূর্বাহ্ণ , ১৩ আগস্ট ২০১৮, সোমবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে

নিজস্ব প্রতিবেদক: আশুগঞ্জ উপজেলা শহরের প্রধান সড়ক শরিয়তনগর থেকে পশ্চিম বাজার ব্রীজ পর্যন্ত সড়ক নির্মান কাজ শেষ হওয়ার আগেই ফাটল দেখা দেয়ায় ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা মৌসুমী বাইন হিরা। সেই সাথে নির্মান সামগ্রী মান ভালো কি না পরিক্ষা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে জানান তিনি। রবিবার দুপুরে নির্মাণাধীন সড়কটি পরিদর্শন শেষে এ কথা জানান।

এ সময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবু আসিফ আহমেদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রার্প্ত আহবায়ক আবু নাছের আহমেদ, প্রেস ক্লাবের সভাপতি সেলিম পারভেজ, সাধারন সম্পাদক সাদেকুল ইসলাম সাচ্চু, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক শাহিন শিকদার, কেন্দ্রীয ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক আতাউর রহমান কবীরসহ এলজিইডি প্রকৌশলীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, অনিয়মের অভিযোগ করে উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা মার্ধ্যমে স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর কাছে স্বারক লিপি দিয়েছে জাগ্রত আশুগঞ্জবাসী নামে একটি সংগঠন। রবিবার সকালে উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা হাতে এ স্বারক লিপি প্রদান করেন সংগঠনটির সদস্য সচিব ঈশা খান, যুগ্ম-আহবায়ক হাজী মোঃ মোবারক আলী চৌধুরী, উপজেলা দূনীতি পতিরোধ কমিটির সভাপতি ডাঃ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ নজরুল, সংগঠনের সদস্য মোশারফ হোসেন মুন্সীসহ সংগঠনের সদস্য বৃন্দ। এ ব্যাপারে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা না নিলে জাগ্রত আশুগঞ্জবাসী সংগঠনের নেতারা আরো জানান কঠোর কর্মসূচির ডাক দিবেন বলে জানান নেতৃ-বৃন্দ।

উল্লেখ, প্রায় ৬৮ লাখ টাকা ব্যায়ে ৫৩৩ মিটার দীর্ঘ ও ১৬ ফুট প্রস্তর সড়কটির নির্মানের ৭ ইঞ্জি পুরো ঢালাই করার কথা থাকলেও সাড়ে পাঁচ ইঞ্জি ঢালাই ফেলে কাজ করা হচ্ছে। ঠিকমতো কাজ না করায় ফলে ঢালাই করার এক-দুদিনের ব্যবধানেই পুরো রাস্তা জুড়ে অনেক ফাঁটল দেখা দিয়েছে। তবে সিমেন্ট-বালুর মসলা দিয়ে এসব ফাঁটল বন্ধ করে জনগণের চোখ ফাঁকি দেয়ার চেষ্টা করছে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোজাহিদ এন্টারপ্রাইজ।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

August 2018
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
আরও পড়ুন