২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

EN

লেবাননে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও শিশু দিবস উপলক্ষ্যে দূতাবাসের বিভিন্ন কর্মসূচী পালন

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ৫:৩৪ পূর্বাহ্ণ , ১৮ মার্চ ২০১৮, রবিবার , পোষ্ট করা হয়েছে 6 years আগে

লেবানন থেকে জহির রায়হান : আজ শনিবার (১৭মার্চ) লেবাননে বাংলাদেশ দূতাবাসের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস ২০১৮ উদযাপন হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ দূতাবাস হলরুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

দূতাবাসের প্রথম সচিব কাউন্সেলর ও দূতালয় প্রধান সায়েম আহমেদ এর সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার। উক্ত আলোচনা সভায় দূতাবাসের সকল কর্মকর্তা/কর্মচারী, রাজনৈতিক, সামাজিক, কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ, মুক্তিযোদ্ধা, গণমাধ্যমকর্মীসহ লেবাননের সকল স্তরের প্রবাসী বাংলাদেশীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন।

 

আলোচনা সভার শুরুতেই পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, বাণী পাঠ, বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, আলোচনা সভা, বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা হয়।

প্রথমেই রাষ্ট্রদূত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন, পরে আওয়ামীলীগ এবং মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ও পুনর্বাসন সোসাইটির লেবানন যুব কমান্ডের নেতাকর্মীরা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। তারপর রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়।

উক্ত আলোচনা সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও আদর্শ নিয়ে বক্তব্য রাখেন, রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার, বাবুল মুন্সী, রুবেল আহমেদ, তপন ভৌমিক, লোকমান হোসেন ও রুহুল আমিন।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য জীবনের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেন, বঙ্গবন্ধু এক মহানুভব ব্যক্তিত্ব ছিলেন। বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশ এই দুটি শব্দকে আলাদা করার কোন সুযোগ নেই। কারণ বঙ্গবন্ধু ছিলেন নির্যাতিত, নিপীড়িত সাধারণ গণমানুষের নেতা। তিঁনি কখনো অন্যায়কে প্রশ্রয় দেননি এমনকি যেখানেই অন্যায়, অবিচার দেখেছেন সেখানেই রুখে দাঁড়িয়েছেন।

রাষ্ট্রদূতের বক্তৃতায় উঠে আসে জন্মের ৫০ বছরেরও কম সময়ের মধ্যে কীভাবে বাংলাদেশ দ্রুতগতিসম্পন্ন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মতো সফলতা দেখাতে যাচ্ছে। উঠে আসে জাতির পিতা কীভাবে পুরো জাতিকে স্বাধীনতার জন্য একতাবদ্ধ করেছিলেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশ থেকে কীভাবে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলায় পরিণত হতে যাচ্ছে- সে সব উন্নয়ন পরিক্রমা। 

একে একে তুলে ধরা হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্ব, দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা, এমডিজি অর্জন, এসডিজি বাস্তবায়নসহ শিক্ষা, স্বাস্থ্য, লিঙ্গ সমতা, কৃষি, দারিদ্র্যসীমা হ্রাস, গড় আয়ু বৃদ্ধি, রপ্তানিমুখী শিল্পায়ন, ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, পোশাক শিল্প, ওষুধ শিল্প, রপ্তানি আয় বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন অর্থনৈতিক সূচক। তুলে ধরা হয় পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকা মেট্রোরেলসহ দেশের মেগা প্রকল্প।

তিঁনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই, কিন্তু বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা আমাদের মাঝে বেঁচে রয়েছেন। তাই আসুন বঙ্গবন্ধু যে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেছেন সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে দলমত, জাতি, বর্ণ নির্বিশেষে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যার হাতকে শক্তিশালী করি। পাশাপাশি ভিষন ২০২১ এবং ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত দেশে রুপান্তরিত করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা বাস্তবায়নে আমরা সকলেই তাঁকে সহযোগীতা করি।

লেবাননে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীদের উদ্দেশ্যে সতর্কবার্তা দিয়ে তিঁনি বলেন, মাদক, জুয়া, ইয়াবা, অনৈতিক সম্পর্ক ও বিভিন্ন অপকর্মের সাথে যারা জড়িত রয়েছেন। সবাই এই পথ থেকে সরে আসুন। ইতিমধ্যেই লেবাননের প্রশাসন ইয়াবা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং এজন্য বাংলাদেশীদেরকেই দায়ী করছে। পাশাপাশি কিছু দিনের মধ্যেই লেবাননের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গোটা লেবাননে সাড়াশি অভিযান পরিচালনা করার কথা রয়েছে। কোনপ্রকার অবৈধ সামগ্রীসহ যদি কোন বাংলাদেশীকে আটক করা হয় দূতাবাসের করার কিছুই থাকবে না। অতএব আপনারা সতর্ক থাকুন এবং এগুলো বর্জন করুন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

March 2018
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  
আরও পড়ুন