২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ ইং | ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

EN

এক শ্রেণীর অসৎ মানুষ অতিরিক্ত টাকার আশায় রাতারাতি অধিগ্রহণকৃত জমিতে স্থাপনা তৈরি করে

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ২:২০ পূর্বাহ্ণ , ২৩ নভেম্বর ২০১৭, বৃহস্পতিবার , পোষ্ট করা হয়েছে 5 years আগে

যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। উন্নয়নের পূর্বশর্তই যোগাযোগ। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন ছাড়া দেশের ভেতরে তো বটেই, বাইরের দুনিয়ার সঙ্গেও তাল মিলিয়ে চলা অসম্ভব। যে এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা যত উন্নত সে এলাকার উন্নয়ন তত ত্বরান্বিত হয়। ইতোমধ্যে আমরা নিম্ন আয়ের দেশের তালিকা থেকে বেরিয়ে এসেছি। এগিয়ে চলেছি মধ্যম আয়ের দেশের দিকে। এই সফলতার পেছনে এবং এই স্বপ্নকে সহজ করার জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রভূত উন্নয়ন সাধন খুবই জরুরি। বর্তমান সরকার যোগাযোগ ব্যবস্থার এই দিকটিকে তাই স্বাভাবিকভাবেই অগ্রাধিকার দিয়েছে। একদিকে দেশের একটি অংশকে অন্য অংশের সঙ্গে সড়ক এবং রেল যোগাযোগের আওতায় নিয়ে আসতে এগিয়ে চলেছে পদ্মা সেতুর কাজ। তেমনি দেশের বিভিন্ন মহাসড়ককে চার লেনে উন্নীত করার কাজও এগিয়ে চলেছে দ্রুতগতিতে। কোথাও কোথাও সড়ক পথে যোগাযোগ সহজ করতে চার লেনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে, আর কোথাও কোথাও কাজ চলছে। আবার কোনো কোনো সড়ক চার লেনে উন্নীত করতে সরকার ভূমি অধিগ্রহণসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজ পরিচালনা করছে। সরকারের এই উদ্যোগেই কোথাও কোথাও দুষ্টচক্রের কারণে ভূমি অধিগ্রহণ খরচ বেড়ে যাচ্ছে। কারণ সড়ক মহাসড়ক নির্মাণ অথবা বর্ধিতকরণের ক্ষেত্রে যেসব ভূমি অধিগ্রহণ করা হয়, সেই ভূমি মালিকদের সরকার যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিয়ে থাকে। এক্ষেত্রে কৃষি জমির ক্ষতিপূরণ যা স্বাভাবিকভাবেই স্থাপনা থাকা জমিতে ক্ষতিপূরণ তার চেয়ে বেশি। ফলে এক শ্রেণীর অসৎ মানুষ অতিরিক্ত টাকার আশায় রাতারাতি অধিগ্রহণকৃত জমিতে স্থাপনা তৈরি করে। আর এভাবেই তারা হাতিয়ে নেয় অতিরিক্ত অর্থ। একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, প্রস্তাবিত পাঁচদোনা-ডাঙ্গা-ঘোড়াশাল ৪ লেন মহাসড়কের পাশের জমিতেও এ রকম স্থাপনা তৈরির হিড়িক পড়ছে। দিনে ও রাতে চলছে স্থাপনা তৈরির কাজ। কেউ কেউ জমি ভাড়া করে তৈরি করছেন স্থাপনা। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, গত ১১ জুলাই একনেকে ৯৩৭ কোটি ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে পাঁচদোনা-ডাঙ্গা-ঘোড়াশাল মহাসড়ক এক স্তর নিচু দিয়ে উভয় পাশে পৃথক সার্ভিস লেনসহ ৪ লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্পের অনুমোদন হয়। ইতোমধ্যে প্রকল্পের জমি অধিগ্রহণের জন্য সরকার থেকে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৫২৩ কোটি টাকা। মনির হোসেন টিপু

আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

November 2017
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930  
আরও পড়ুন